ময়মনসিংহে ৭৫ বছর বয়সী এক ব্যক্তির বাবা হওয়ার পুরোনো খবর ভাইরাল

বুম বাংলাদেশ দেখেছে, ২০১৯ সালের অক্টোবর মাসের একটি খবরকে অপ্রাসঙ্গিকভাবে নতুন করে প্রচার করা হচ্ছে; যা বিভ্রান্তিকর।

ময়মনসিংহের মুক্তাগাছায় সত্তরোর্ধ্ব এক ব্যক্তির বাবা হওয়া সংক্রান্ত অনলাইন পোর্টালের একটি খবরের লিংক সম্প্রতি সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকের একাধিক আইডি ও পেজ থেকে পোস্ট করা হয়েছে। খবরের সাথে জুড়ে দেয়া ছবিতে এক বয়স্ক ব্যক্তিকে একটি শিশু কোলে নিয়ে বসে থাকতে দেখা যায়। এমন কিছু পোস্ট দেখুন এখানে, এখানে এবং এখানে

গত ১ আগস্ট 'Radio Barta' নামের একটি ফেসবুক পেজ থেকে অখ্যাত একটি অনলাইন পোর্টালের লিংক পোস্ট করে বলা হয়, '৭৫ বছর ব'য়সে বাবা হওয়া, মেনে নিতে পারছেন না ভাতিজারা!'

পোস্টটি দেখুন এখানে

হুবহু একই শিরোনামে প্রকাশিত অনলাইন পোর্টালের লিংকে গিয়ে দেখা যায় প্রতিবেদনটির ডেটলাইনে প্রকাশের তারিখ হিসাবে '১ আগস্ট, ২০২১' উল্লেখ করা আছে। অর্থাৎ ডেটলাইন দেখে মনে হচ্ছে ঘটনাটি সাম্প্রতিক।

খবরটি দেখুন এখানে

ফ্যাক্ট চেক:

বুম বাংলাদেশ যাচাই করে দেখেছে, এটি সাম্প্রতিক ঘটনা নয়।

বিভিন্ন কিওয়ার্ড দিয়ে সার্চ করে দেখা গেছে, ২০১৯ সালের ২১ অক্টোবর অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগো নিউজ-এ "৭৫ বছর বয়সে বাবা হওয়ায় তোতা মিয়ার ওপর ক্ষুব্ধ স্বজনরা" শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। এতে ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা উপজেলার তারাটি ইউনিয়নের কলাদিয়া গ্রামের হাবিবুর রহমান তোতা মিয়া নামের এক ব্যক্তির ৭৫ বছর বয়সে বাবা হওয়ার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। খবরটিতে আলোচ্য অনলাইন পোর্টালে ব্যবহার করা হুবহু একই ছবি যুক্ত করা আছে।

জাগো নিউজের প্রতিবেদন (বামে) ও যুক্ত করা ছবির (ডানে) স্ক্রিনশট

এছাড়াও বর্তমানে ভাইরাল খবরটির সাথে ২০১৯ সালে জাগো নিউজে প্রকাশিত উক্ত খবরটির হুবহু মিল পাওয়া গেছে। দুটি খবরের স্ক্রিনশট পাশাপাশি দেখুন--

জাগো নিউজ (বামে) এবং আলোচ্য অনলাইন পোর্টালের (ডানে) পাশপাশি স্ক্রিনশট

অর্থাৎ ভিন্ন একটি গণমাধ্যমে প্রকাশিত দুই বছর আগের একটি খবর হুবহু কপি করে নতুন ডেটলাইনে কোন সোর্স ছাড়া অনলাইন পোর্টালটিতে ভাইরাল খবরটি তৈরি করা হয়েছে।

সুতরাং ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা উপজেলার হাবিবুর রহমান তোতা মিয়ার ৭৫ বছর বয়সে বাবা হওয়ায় পুরোনো খবরকে অপ্রাসঙ্গিকভাবে সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকে নতুন করে প্রচার করা হচ্ছে; যা বিভ্রান্তিকর।

Claim Review :   ৭৫ বছর বয়সে বাবা হওয়া, মেনে নিতে পারছেন না ভাতিজারা
Claimed By :  Facebook Posts
Fact Check :  Misleading
Show Full Article
Next Story