ছবিগুলো ভারতের ধর্মীয় বিতর্কের ঘটনার বিরুদ্ধে সাম্প্রতিক প্রতিবাদের নয়

বুম বাংলাদেশ দেখেছে, ছবি দুটির একটি ইরানের নেতা আয়াতুল্লাহ খোমেনীর শেষকৃত্যের ছবি ও অন্যটি ব্লগারদের বিরুদ্ধে আন্দোলনের।

সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকের একাধিক আইডি, পেজ ও গ্রুপে দুটি ছবি শেয়ার করে বলা হচ্ছে, সম্প্রতি ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপির বহিষ্কৃত মুখপাত্র নুপূর শর্মার মহানবী (সা.) কে নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্যের পর বিক্ষোভ-প্রতিবাদের ছবি এগুলো। এরকম কিছু পোস্ট দেখুন এখানে, এখানে, এখানেএখানে

গত ৯ জুন 'আবু ত্বাহ্ মুহাম্মদ আদনান সমথর্ন' নামের একটি গ্রুপে 'বুখারী শরিফ হাদিস' আইডি থেকে দুটি ছবি পোস্ট করে লেখা হয়, "এই পোস্ট যাদের চোখে পড়বে কমপক্ষে ১০ হ্যাসটেক না দিয়ে যাবেন না। রাসূল [সাঃ] এর উম্মত হিসেবে নিজের দায়িত্ব পালন করি। আসুন আমরা অন্তত এই সামান্য প্রতিবাদে শরিক হই । যেন হাশরের ময়দানে নবীজির ভালোবাসার থেকে আমরা বঞ্চিত না হই।" সম্প্রতি ভারতে বিজেপি মুখপাত্র নুপূর শর্মার ধর্মীয় বিতর্কিত বক্তব্য দেওয়ার ঘটনায় ফেসবুকে প্রতিবাদের হ্যাশট্যাগ #WeLoveMohammadSAWChallenge 💕 এবং #WeLoveMohammadChallenge সেখানে সংযুক্ত করা হয়েছে। পোস্টটির স্ক্রিনশট দেখুন--


পোস্টে সংযুক্ত ছবিগুলো আলাদাভাবে দেখুন--


ফ্যাক্ট চেক:

বুম বাংলাদেশ যাচাই করে দেখেছে, পোস্টে ব্যবহৃত জনসমাগমের ছবিগুলো সাম্প্রতিক কোন প্রতিবাদের ঘটনার নয়। যাচাই করে দেখা গেছে, পোস্টে ব্যবহৃত ছবি দুটির একটি ১৯৮৯ সালে তোলা ইরানের নেতা আয়াতুল্লাহ খোমেনীর শেষকৃত্যের ছবি ও অন্যটি বাংলাদেশে ২০১৩ সালে ব্লগারদের বিরুদ্ধে হেফাজতে ইসলামের আন্দোলন কর্মসূচির ছবি।

পোস্টের দ্বিতীয় ছবি:

রিভার্স ইমেজ সার্চ করে ফটো স্টকার ওয়েবসাইট gettyimages-এ 'Islamistas versus bloggers' অর্থ্যাৎ, ইসলামিস্ট বনাম ব্লগার শিরোনামে ২০১৩ সালের ৬ এপ্রিল AFPTV-র ধারণকৃত একটি ভিডিও খুঁজে পাওয়া যায় যেখানে ভাইরাল পোস্টের প্রথম ছবিটি খুঁজে পাওয়া যায়। ছবিটির বর্ণনায় ছবিটি ধারণের অবস্থান 'ঢাকা, বাংলাদেশ' লেখা হয়েছে। ৫৮ সেকেন্ডের ভিডিওটির ২৭ তম সেকেন্ডের ছবিটির মতন চিত্র খুঁজে পাওয়া যায়। ছবিটির স্ক্রিনশট দেখুন--

ভিডিওটি দেখুন এখানে

এবারে, ভাইরাল পোস্টের দ্বিতীয় ছবি ও ওয়েবসাইট থেকে প্রাপ্ত ছবির তুলনামূলক সাদৃশ্য দেখুন---


বিবিসি বাংলায় ২০১৩ সালের ৬ এপ্রিল 'ঢাকায় হেফাজতে ইসলামের বিশাল সমাবেশ, সোমবার হরতালের ডাক' শিরোনামে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, নাস্তিক ব্লগারদের শাস্তি এবং ইসলাম ধর্মের অবমাননাকারীদের কঠোর শাস্তির বিধান সহ ব্লাসফেমি আইন করার দাবিতে মতিঝিলের শাপলা চত্ত্বরে হেফাজতে ইসলামের ওই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। ওই প্রতিবেদনে ব্যবহৃত ছবিটিতেও আলোচ্য ছবিটিকেই অন্য এঙ্গেল থেকে তোলা হয়েছে। ছবিটি দেখুন--


দুটি ছবির মধ্যে তুলনা দেখুন--


মূলত, ভাইরাল পোস্টের দ্বিতীয় ছবিটি ধারণ করা হয়েছে ২০১৩ সালের ৬ এপ্রিল হেফাজতে ইসলামীর আন্দোলনের সময়ে।

পোস্টের প্রথম ছবি:

আবার, রিভার্স ইমেজ সার্চের মাধ্যমেই ফটো স্টকার ওয়েবসাইট gettyimages-এ 'Iranians express their emotion at the funeral of former Iranian religious leader and dictator Ayatollah Khomeini, born Ruhollah Mousavi, who died of prostate cancer in June 1989.' শিরোনামে খুঁজে পাওয়া যায় পোস্টের প্রথম ছবিটি। সেখানে চিত্রগ্রাহকের নাম 'Régis BOSSU' হিসেবে উল্লেখ করা আছে। ছবি তোলার সময়কাল ৫ জুন, ১৯৮৯। ছবিটির স্ক্রিনশট দেখুন--

মূল ছবিটি দেখুন এখানে

এবারে gettyimages-এর ওয়েবসাইটে পাওয়া ছবি এবং পোস্টের প্রথম ছবির তুলনামূলক সাদৃশ্য দেখুন--


মূলত, এটি ১৯৮৯ সালের ৫ জুন ইরানের সাবেক ধর্মীয় নেতা ও শাসক আয়াতুল্লাহ খোমেনীর শেষকৃত্যের সময়ে তোলা ছবি। ওই বছরের ৩ জুন মৃত্যুবরণ করেন ইরানের এই নেতা। এর দুইদিন পরে ৫ জুন তার শেষকৃত্যের আয়োজন করা হয়।

অর্থ্যাৎ, ভিন্ন ঘটনার পুরোনো দুটি ছবিকে সম্প্রতি মহানবী (সা.) কে কটুক্তির প্রতিবাদে আন্দোলনের ছবি হিসেবে প্রচার করা হচ্ছে।

সুতরাং, পুরোনো ছবিকে সাম্প্রতিক আন্দোলনের ছবি হিসেবে প্রচার করা বিভ্রান্তিকর।

Claim :   রাসূল [সাঃ] এর উম্মত হিসেবে নিজের দায়িত্ব পালন করি। আসুন আমরা অন্তত এই সামান্য প্রতিবাদে শরিক হই ।
Claimed By :  Facebook post
Fact Check :  False
Show Full Article
Next Story
Our website is made possible by displaying online advertisements to our visitors.
Please consider supporting us by disabling your ad blocker. Please reload after ad blocker is disabled.