এই ভিডিওটি হামাস কর্তৃক ইসরায়েলি বিমান বিধ্বংসের নয়

ভিডিওটি সিরিয়া ও রাশিয়ার ভিন্ন ঘটনার দুটি ভিডিও মিলিয়ে তৈরি করা; যা ইসরায়েলি বিমান বিধ্বংসের বলা বিভ্রান্তিকর।

সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকে একটি ভিডিও পোস্ট করে দাবি করা হচ্ছে হামাস কর্তৃক ইসরায়েলি বিমান ধ্বংসের ভিডিও এটি। ক্লিপটির শুরুতে পৃথক দুটি দৃশ্য, একটি হেলিকপ্টারটাকে আকাশে উড়তে এবং কয়েকটি বাড়িতে বোমা বর্ষিত হতে দেখা যায়। তার পরবর্তী দৃশ্যে কিছু ব্যক্তিকে কামান গোলা ছুড়তে দেখা যায় এবং সবশেষে দেখা যায়, একটি বিধ্বস্ত বিমান ফাঁকা স্থানে পড়ে রয়েছে। এমন কিছু পোস্ট দেখুন এখানে এখানে

'Daily' নামের একটি ফেসবুক পেজ থেকে ভিডিওটি পোস্ট করে লেখা হয়, "ইসরাইলের বিমান ধ্বংস করল হামাস।" অর্থাৎ, দাবি করা হচ্ছে হামাস কর্তৃক ইসরায়েলি বিমান ধ্বংসের ভিডিও এটি।

পোস্টটির আর্কাইভ দেখুন এখানে

ফ্যাক্ট চেক:

বুম বাংলাদেশ যাচাই করে দেখেছে, ভিডিওকে করা দাবিটি বিভ্রান্তিকর। অন্তত দুটি পৃথক ঘটনার ফুটেজ যুক্ত করে ভাইরাল এই ভিডিওটি তৈরী করা হয়েছে। যার কোনোটিই হামাসের হাতে ইসরায়েলি ঘটনা সংক্রান্ত নয়।

কি-ফ্রেম সার্চ করার পর ভাইরাল ভিডিওটিতে দৃশ্যমান ৪৫ সেকেন্ড থেকে ১ মিনিট ১৫ সেকেন্ড পর্যন্ত ক্লিপটির একটি অংশ ইউটিউবে খুজে পাওয়া গেছে, যা "Baladi-News Network (‫بلدي نيوز‬‎)" নামের ইউটিব চ্যানেল থেকে "مشاهد من التمهيد المدفعي على قرية النيرب قبل سيطرة المعارضة والقوات التركية عليها" শিরোনামে ২০২০ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি আপলোড করা হয়। উল্লেখ্য Baladi-News Network সিরিয়াভিত্তিক একটি সংবাদমাধ্যম।

ইউটিউব ভিডিওতে দেখতে পাওয়া কামান এবং ব্যক্তিদের সাথে ভাইরাল ভিডিওটির ব্যক্তি ও কামানের হুবহু মিল পাওয়া গেছে।

ইউটিউব ভিডিও ( বামে) এবং ভাইরাল ভিডিওর (ডানে) পাশাপাশি স্ক্রিনশট

ভিডিওটির শিরোনামের স্বয়ংক্রিয় অনুবাদ থেকে যায়, এটি সিরিয়ার নেইরাব নামক স্থানে বিদ্রোহীদের সামরিক অবস্থানের ভিডিও। সিরিয়াভিত্তিক সংবাদমাধ্যম Baladi-news.com-এ ২০২০ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনও একই কামানের ছবি খুঁজে পাওয়া গেছে। প্রতিবেদনটি থেকে জানা যায় কামানটি সিরিয়ান বিদ্রোহীদের ব্যবহৃত অস্ত্র। অর্থাৎ, হামাস-ইসরায়েলের সংঘাতের সাথে এর কোন সম্পর্ক নেই।

Baladi-news.com-এর প্রতিবেদনের স্ক্রিনশট

আরও কি-ফ্রেম নিয়ে সার্চ করার পর ভাইরাল ভিডিওটির ১ মিনিট ১৭ সেকেন্ড থেকে শেষ পর্যন্ত দেখতে পাওয়া ক্লিপটিরও একটি ভার্সন ইউটিউবে খুঁজে পাওয়া গেছে। যা 'Телеканал Звезда' নামের একটি ইউটিউব চ্যানেল গত ১৯ জুন আপলোড করা হয়।

ইউটিউব ভিডিওটির বর্ণনার স্বয়ংক্রিয় অনুবাদ থেকে জানা যায়, রাশিয়ার কেমেরোভো অঞ্চলে বিমান দুর্ঘটনার ভিডিও ক্লিপ এটি। ক্লিপটিতে দেখতে পাওয়া অনেক দৃশ্যের সাথে ভাইরাল ভিডিওটির শেষভাগে দেখতে পাওয়া দৃশ্যের হুবহু মিল বিদ্যমান।

ভাইরাল ভিডিও ( বামে) এবং ইউটিউব ভিডিওর ( ডানে) পাশাপাশি স্ক্রিনশট

এর সূত্রধরে, কিওয়ার্ড দিয়ে সার্চ করে সংবাদমাধ্যম রয়টার্সে গত ১৯ জুন প্রকাশিত এই ঘটনা সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া গেছে। প্রতিবেদনটিতে বলা হয়, রাশিয়ার দক্ষিনপশ্চিম সাইবেরিয়ার কেমেরোভো অঞ্চলে গত ১৯ জুন একটি বিমান দুর্ঘটনা হয়। রয়টার্সের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ওই দুর্ঘটনায় চার জন আরোহী মারা যান। প্রতিবেদনটি দেখুন এখানে

প্রতিবেদনটির স্ক্রিনশট

অর্থাৎ, দুটি ভিন্ন ঘটনার ভিডিও ক্লিপ যুক্ত করে হামাস কর্তৃক ইসরায়েলি বিমান ধংসের ভিডিও বলে প্রচার করা হচ্ছে। তবে ভাইরাল ভিডিওটিতে এই দুটি ফুটেজ বাদে আরও ফুটেজ যুক্ত করা হয়েছে কিনা তা যাচাই করেনি বুম বাংলাদেশ।

সুতরাং, সিরিয়ার এবং রাশিয়ার দুটি পৃথক ঘটনার ভিডিওকে যুক্ত করে হামাস-ইসরায়েল সংঘাত কিংবা হামাস কর্তৃক ইসরায়েলি বিমান বিধ্বংসের বলে প্রচার করা হচ্ছে, যা বিভ্রান্তিকর।

Show Full Article
Next Story