ছবিগুলো সম্প্রতি ইউক্রেনে ইসকনের খাদ্য বিতরণের নয়

বুম বাংলাদেশ দেখেছে, ভাইরাল ছবিগুলো পুরোনো এবং চলমান রুশ-ইউক্রেন সংঘাতের সাথে এর কোন সম্পর্ক নেই।

সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকের একাধিক আইডি ও পেজ থেকে খাদ্য বিতরণের দুটি ছবির একটি কোলাজ শেয়ার করে দাবি করা হচ্ছে, যুদ্ধবিদ্ধস্ত ইউক্রেনে ইসকনের খাদ্য বিতরনের দৃশ্য এটি। এমন কিছু পোস্ট দেখুন এখানে, এখানে এবং এখানে

গত ২ মার্চ 'Chayan Adhikari' নামের ফেসবুক আইডি থেকে কোলাজ ছবিটি পোস্ট করে ক্যাপশনে লেখা হয় "ইউক্রেনের যুদ্ধ বিধস্ত এলাকাতে খাবার দিচ্ছে ইস্কন ❤️ সেবাই পরম ধর্ম ❤️ আমাদের Culture যা কয়েক হাজার বছর ধরে চলে আসছে🙏🌸" স্ক্রিনশট দেখুন--

পোস্টটি দেখুন এখানে

ফ্যাক্ট চেক:

কিন্তু বুম বাংলাদেশ যাচাই করে দেখেছে, ভাইরাল ছবি দুটি সাম্প্রতিক সময়ে যুদ্ধ আক্রান্ত ইউক্রেনে খাবার বিতরণের নয়।

প্রথম ছবি

রিভার্স ইমেজ সার্চ করে, ফ্লোরিডার আলাছুয়া হরেকৃষ্ণ মন্দিরের ওয়েবসাইটে খুঁজে পাওয়া গেছে। ছবির সাথে তারিখ উল্লেখ না করা হলেও ওয়েবসাইটের 'ইউআরএল' অনুসারে ছবিটি ২০১৫ সালে আপলোড করা হয়েছিল।

ছবিটি দেখুন এখানে

ছবিটি চলতি বছরের আগে আপলোড করা ইসকনের আরও একাধিক ওয়েবসাইটে খুঁজে পাওয়া গেছে। তবে বুম বাংলাদেশের পক্ষে স্বাধীনভাবে ছবিটির উৎস যাচাই করা সম্ভব হয়নি।

দ্বিতীয় ছবি

এই ছবিটিও রিভার্স ইমেজ সার্চ করে, চিত্র, শব্দ ও অন্যান্য মাল্টিমিডিয়া ফাইলের উন্মুক্ত ভান্ডার উইকিমিডিয়া কমন্সে ( Wikimedia Commons) "Member of Food for Life Russia giving food" শিরোনামে মূল ছবিটি খুঁজে পাওয়া গেছে। গুগল অনুসন্ধানে জানা যায়, ফুড ফর লাইফ ইসকন-এর সহযোগী একটি সংস্থা, যারা রাশিয়ায়ও কাজ করে থাকে।

ছবিটি দেখুন এখানে

এই সূত্রধরে সার্চ করার পর, ইসকনের অফিশিয়াল ওয়েবসাইটেও আলোচ্য ছবিটি খুঁজে পাওয়া গেছে। এখানে ছবির সাথে কোনো বিবরণ দেয়া হয়নি। তবে ছবির সাথে ট্যাগলাইনে লেখা হয়েছে, চেচনিয়া। উল্লেখ্য, চেচনিয়া বা চেচেন রিপাবলিক রাশিয়ার একটি প্রজাতন্ত্র। এ থেকে ধারণা করা যায় ছবিটি চেচনিয়ার কোনো ঘটনায় অথবা চেচনিয়ায় ধারণ করা।

ছবিটি দেখুন এখানে

অর্থাৎ দুটি ছবিই চলমান রুশ-ইউক্রেন সংঘাতের বেশ আগের।

সুতরাং পুরোনো দুইটি ছবিকে চলমান ইউক্রেন-রুশ সংঘাতে ইউক্রেনে ইসকনের খাদ্য বিতরণের ছবি দাবি করে প্রচার করা হচ্ছে সামাজিক মাধ্যমে, যা বিভ্রান্তিকর।

Claim :   ইউক্রেনের যুদ্ধ বিধস্ত এলাকাতে খাবার দিচ্ছে ইস্কন
Claimed By :  Facebook Post
Fact Check :  Misleading
Show Full Article
Next Story
Our website is made possible by displaying online advertisements to our visitors.
Please consider supporting us by disabling your ad blocker. Please reload after ad blocker is disabled.