অস্ট্রিয়ার ভিডিওকে ইউক্রেন-রাশিয়া সংঘাতের দাবিতে প্রচার

বুম বাংলাদেশ দেখেছে, অস্ট্রিয়ার ভিয়েনায় অনুষ্ঠিত পরিবেশবাদীদের প্রতিবাদের ভিডিও এটি।

সম্প্রতি সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকের একাধিক আইডি ও পেজ থেকে একটি ভিডিও পোস্ট করে দাবি করা হচ্ছে, গণমাধ্যমকে রাশিয়ার হাতে বেসামরিক লোক হতাহত দেখানোর জন্য জীবন্ত লোক দিয়ে অভিনয় করানো হচ্ছে।। এমন কিছু পোস্ট দেখুন এখানে, এখানে, এখানে এবং এখানে

গত ৩ মার্চ 'MD Abdul Aziz AFnan' নামের একটি ফেসবুক আইডিতে ভিডিওটি পোস্ট করে ক্যাপশনে লেখা হয়েছে, "রা*শিয়ার হাতে প্রচুর বেসামরিক লোক হতা*হত হচ্ছে তা প্রচারের জন্য জীবন্ত লোক দিয়ে শ্যুটিং এর সময় এক লাশ কাপড় তুলে দেখতে চাইলো একশান শেষ হয়েছি কিনা🤣" । স্ক্রিনশটে দেখুন--

পোস্টের আর্কাইভ দেখুন এখানে

ফ্যাক্ট চেক:

বুম বাংলাদেশ যাচাই করে দেখেছে, ইউক্রেন-রাশিয়া সংঘাতের সময়কার মিডিয়ার কারসাজি নয় বরং অস্ট্রিয়ার ভিয়েনায় অনুষ্ঠিত পরিবেশবাদীদের প্রতিবাদের পুরোনো ভিডিও এটি।

ভিডিওটি থেকে কী-ফ্রেম কেটে রিভার্স সার্চ করলে, মূল ভিডিওটি অস্ট্রিয়া ভিত্তিক সংবাদমাধ্যমের ইউটিউব চ্যানেলে খুঁজে পাওয়া যায়। 'OE24.TV নামে ইউটিউব চ্যানেলে "Wien: Demo gegen Klimapolitik( স্বয়ক্রিয় অনুবাদ: Vienna: Demo against climate policy)" শিরোনামে মূল ভিডিওটি গত ৪ ফেব্রুয়ারিতে আপলোড করা হয়েছে।

ভাইরাল ফেসবুক পোস্ট এবং ইউটিউব ভিডিওর স্ক্রিনশটের পাশাপাশি তুলনামূলক পর্যালোচনা দেখুন--


এই সূত্রধরে সার্চ করার পর, OE24-এর ওয়েবসাইটেও গত ৪ ফেব্রুয়ারি একই শিরোনামে প্রকাশিত ভিডিও প্রতিবেদনটি খুঁজে পাওয়া গেছে।

প্রতিবেদনটি দেখুন এখানে

পাশাপাশি, এই বিক্ষোভের খবর তৎকালে Austria Press Agency সহ একাধিক গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছিল।

প্রতিবেদনটি পড়ুন এখানে

প্রতিবেদনগুলো থেকে জানা যায়- গ্রিনহাউজ গ্যাস নিঃসরণ কমানাের জন্য পদক্ষেপ না নেয়া এবং কার্যকরী পরিবেশ রক্ষা আইনের দাবিতে অস্ট্রিয়ান পরিবেশবাদীরা তখন এই বিক্ষোভের আয়োজন করে। কোনো নীতির কুফল তুলে ধরার জন্য মৃত মানুষের রূপে প্রতিবাদের এই ধারণাকে `ডাই-ইন` প্রতিবাদ বলা হয়।

সুতরাং অস্ট্রিয়ার পরিবেশবাদীদের বিক্ষোভের ভিডিওকে ইউক্রেন-রাশিয়া সংঘাতে গণমাধ্যমের কারসাজি দাবি করা হচ্ছে সামাজিক মাধ্যমে, যা বিভ্রান্তিকর।

Claim :   রা*শিয়ার হাতে প্রচুর বেসামরিক লোক হতা*হত হচ্ছে তা প্রচারের জন্য জীবন্ত লোক দিয়ে শ্যুটিং এর সময়
Claimed By :  Facebook Post
Fact Check :  Misleading
Show Full Article
Next Story
Our website is made possible by displaying online advertisements to our visitors.
Please consider supporting us by disabling your ad blocker. Please reload after ad blocker is disabled.