২০২১ পিডিসি নামের গ্রহাণু পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসার খবরটি সত্য নয়

নাসার প্রশিক্ষনমূলক কর্মসূচীর অংশ হিসেবে কল্পিত একটি মহড়ার খবরকে বাস্তব ধরে নিয়ে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ করা হচ্ছে।

২০২১ পিডিসি নামের দৈত্যাকার একটি গ্রহাণু পৃথিবীতে আছড়ে পড়তে যাচ্ছে মর্মে একটি খবর বাংলাদেশের বেশ কয়েকটি মূলধারার সংবাদমাধ্যমসহ বিভিন্ন অনলাইন পোর্টালে প্রকাশিত হয়েছে। এর সূত্রে সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকেও তথ্যটি ছড়িয়েছে।


একুশে টেলিভিশনের প্রতিবেদন দেখুন এখানে

ডিবিসি নিউজ এর প্রতিবেদন দেখুন এখানে

বাংলাদেশ প্রতিদিনের প্রতিবেদন দেখুন এখানে

আরটিভির প্রতিবেদন দেখুন এখানে

বিজনেস ইনসাইডার এর বরাতে গত ৫ মে প্রকাশিত দৈনিক যুগান্তর অনলাইনের খবরে বলা হয়-

"পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসছে একটি দৈত্যাকৃতির গ্রহাণু। নাসার বিজ্ঞানীরা এ নিয়ে হুঁশিয়ারি বার্তা দিয়েছেন। তাদের দাবি, পরমাণু বোমা দিয়েও গ্রহাণুটিকে থামানো যাবে না। ধারণা করা হচ্ছে- জার্মানি, চেক রিপাবলিক ও অস্ট্রিয়ার সীমান্ত এলাকায় এটি আঘাত হানবে। এ বিষয়ে নাসা ৯৯ শতাংশ নিশ্চিত বলেও জানানো হয়েছে। বিজ্ঞানীদের হাতে আর মাত্র ৬ মাস সময় আছে আঘাত থেকে পৃথিবীকে বাঁচানোর জন্য। গ্রহাণুটি পৃথিবী থেকে ৩৫ মিলিয়ন মাইল দূরে রয়েছে।"

এসব প্রতিবেদনের সুত্র ধরে সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকেও এমন পোস্ট ছড়িয়েছে।

আর্কাইভ দেখুন এখানে

ফ্যাক্ট চেক:

বুম বাংলাদেশ যাচাই করে দেখেছে যে, পৃথিবীর দিকে দৈত্যাকার গ্রহাণু ধেয়ে আসার খবরটি বিভ্রান্তিকর।

মূলত মহাকাশ গবেষনা সংস্থা নাসার একটি সম্মিলিত প্রশিক্ষণ মহড়ার খবরকেই সত্য ধরে নিয়ে বিভ্রান্তিকরভাবে প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে।

বাংলাদেশী সংবাদমাধ্যমগুলোর মধ্যে একুশে টেলিভিশন ও আরটিভির অনলাইনের এ সংক্রান্ত খবরে বৃটেনের ডেইলী মেইলের বরাত উল্লেখ করা আছে।

কিন্তু 'Mission IMPOSSIBLE: NASA warns even a nuclear bomb wouldn't stop a giant asteroid heading for Earth after massive six month simulation exercise ends in devastating impact' শিরোনামের ডেইলী মেইলের প্রতিবেদনটিতে এটিকে সিমুলেশন এক্সারসাইজ বা কল্পনামূলক অনুশীলন বলা হয়েছে। ডেইলী মেইলের প্রতিবেদন অনুযায়ী-

''NASA scientists have concluded that even a nuclear bomb wouldn't be able to stop a giant asteroid from destroying a huge chunk of Earth.

In a simulated exercise, US and European scientists were told they had six months to come up with a lifesaving plan to stop a massive rock smashing into Earth that had been spotted 35 million miles away.

The study was conducted over the course of four days, from April 26 through April 29, and astronomers used radar systems, data imaging and other technologies like the world's largest telescope.

Scientists determined that six months is not enough time to prepare a spacecraft to smash into the asteroid and that a nuclear bomb - like in the film Armageddon - would not take the monster space rock down.''

অর্থাৎ নাসার বিজ্ঞানীরা সতর্ক করে বলেছেন যে, বৃহৎ কোন গ্রহাণু পৃথিবীতে আঘাত হানলে সেটাকে প্রতিহত করতে পারমাণবিক বোমাও কাজে আসবে না। সম্প্রতি 'Space Mission Options for the Hypothetical Asteroid Impact Scenario' শীর্ষক নাসার ৪ দিন ব্যাপী এক সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের বিজ্ঞানীদেরকে পৃথিবী থেকে ৩৫ মিলিয়ন মাইল দূরে আবিষ্কৃত একটি গ্রহাণু পৃথিবীতে আঘাত করতে যাচ্ছে এটা ধরে নিয়ে সেটাকে প্রতিহত করতে ৬ মাসের মধ্যে একটি পরিকল্পনা উপস্থাপন করতে বলা হয়েছিল। তবে এর বিপরীতে এই বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন যে এরকম গ্রহাণুর আঘাত মোকাবেলার উপায় বের করার জন্য ৬ মাস পর্যাপ্ত সময় নয়, এমনকি একটি পারমাণবিক বোমাও তা প্রতিহত করতে পারবে না।

দেখা যাচ্ছে স্বয়ং ডেইলী মেইলের প্রতিবেদনেও এটাকে প্রশিক্ষনার্থে ধরে নেয়া একটি ধারণা হিসেবে আখ্যা দেয়া হয়েছে।

অন্যদিকে বিজনেস ইনসাইডারকে সূত্র হিসেবে যুগান্তর অনলাইনে উল্লেখ করা হলেও বিজনেস ইনসাইডারের 'In a NASA simulation of an asteroid impact, scientists concluded they couldn't stop a space rock from decimating Europe' শীর্ষক প্রতিবেদনে দেখা যায় সেখানেও এটিকে কল্পিত গ্রহাণু বা fictitious asteroid বলা হয়েছে। বিজনেস ইনসাইডারের প্রতিবেদন অনুযায়ী-


এই দুটি সূত্র ছাড়াও গুগল সার্চের মাধ্যমে বুম বাংলাদেশ নাসার সেন্টার ফর নিয়ার-আর্থ অবজেক্ট স্টাডিজ (The Center for Near-Earth Object Studies) বা CNEOS এর অধীনে Planetary Defense Program এর আওতাভুক্ত the International Academy of Astronautics (IAA) 2021 Planetary Defense Conference সম্মেলনটির তথ্য যাচাই করে দেখেছে। CNEOS এর ওয়েবসাইটে এ নিয়ে বিস্তারিত উল্লেখ আছে। দেখুন এখানে


প্রতি দুই বছর অন্তর এই কনফারেন্সটি আয়োজন করা হয় যেখানে মহাকাশ সংক্রান্ত বিভিন্ন দুর্যোগ সম্পর্কে আলোচনা এবং প্রস্তুতি যাচাই করা হয়। এর অংশ হিসাবেই অনলাইনে ২৬ এপ্রিল থেকে ২৯ এপ্রিল চারদিনের মহড়ায় অংশ নেন বিজ্ঞানীরা।

এবারের সম্মেলনে '2021 PDC' নামের একটি কল্পিত গ্রহাণুর নাম ঘোষনা করে বিজ্ঞানীদের বলা হয় যে আগামী ২০ অক্টোবর পৃথিবীতে আঘাত হানতে পারে গ্রহাণুটি। এর উপর ভিত্তি করেই তারা কল্পিত গ্রহাণু মোকাবেলায় প্রস্তুতি যাচাই করা শুরু করেন।

উল্লেখ্য যে এই সকল কল্পিত ভবিষ্যতবাণীই করা হয় কৃত্রিম মহাকাশ মহড়ার অংশ হিসাবে।

সংবাদমাধ্যম নিউজ উইক এর মহড়া সংক্রান্ত খবরটি দেখুন এখানে

সুতরাং মহাকাশ বিজ্ঞানীদের কাল্পনিক মহড়াকে বাস্তব ধরে নিয়ে ২০২১ পিডিসি নামে বিশাল গ্রহাণু ধেয়ে আসার খবরটি বিভ্রান্তিকর।

Claim Review :   পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসছে বিশাল গ্রহাণু
Claimed By :  নিউজ আউটলেটস
Fact Check :  Misleading
Show Full Article
Next Story