সিলিকন ভাস্কর্যকে ভুয়া দাবিতে ফেসবুকে প্রচার

বুম বাংলাদেশ দেখেছে, ভাইরাল ছবিটি ইতালির ভাস্কর লাইরা মাগানুকোর তৈরি এক কাল্পনিক প্রাণীর সিলিকন ভাস্কর্যের।

সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকের বিভিন্ন আইডি ও পেজ থেকে একটি ছবি ও ভিডিও শেয়ার করে দাবি করা হচ্ছে মানুষের মত দেখতে এক বিরল প্রাণীর দেখা মিলেছে। ছবিতে এক চতুষ্পদ জন্তুকে দেখা যায়, যার মুখাবয়ব অনেকটা মানবাকৃতির। এমন কিছু পোস্ট দেখুন এখানেএখানে

গত ৪ ফেব্রুয়ারি 'Shoumik Rahman" নামের একটি আইডি থেকে আলোচ্য ছবি পোস্ট করে লেখা হয়, "দেখা মিলল মানুষের মতো এক বিরল প্রানীর"। পাশাপাশি ২০২০ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর 'Pothik TV HD' নামের একটি ফেসবুক পেজ থেকে "অদ্ভূত দেখতে এক প্রাণীর কিছু ছবি, যার মুখটা মানুষের মতো," শিরোনামে একটি ভিডিও পোস্ট করে দাবি করা হয় এটি মানুষের মত দেখতে এমন একটি প্রাণীর। অর্থাৎ ছবি এবং ভিডিও উভয় স্থানেই দাবি করা হচ্ছে, এটি একটি বিরল প্রাণী, যার মুখ দেখতে মানুষের মত।

পোস্টটি দেখুন এখানে

ভিডিওটির স্ক্রিনশট দেখুন-

পোস্টটি দেখুন এখানে

ফ্যাক্ট চেক:

বুম বাংলাদেশ যাচাই করে দেখেছে, ভাইরাল হওয়া ছবিটি প্রকৃতপক্ষে কোন প্রাণীর নয়। মূলত এটি ইতালির ভাস্কর লাইরা মাগানুকোর সৃষ্টি এক কাল্পনিক প্রাণীর ভাস্কর্যের ছবি, যা সিলিকনের তৈরি।

রিভার্স ইমেজ সার্চ করে, হস্তশিল্প ও শিল্পকর্ম ভিত্তিক আমেরিকান বিশেষায়িত ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম Etsy.com-এ ছবিটি খুঁজে পেয়েছে বুম বাংলাদেশ। সেখানে পণ্যটির বর্ণনায় ছবিটিকে লাইরা মাগানুকোর তৈরি সিলিকন ভাস্কর্য বলা হয়েছে, যেখানে লেখা আছে "This piece is carved entirely by hand in acetic silicone paste."। অর্থাৎ, এটি সিলিকন দিয়ে তৈরী ভাস্কর্যের ছবি, কোনো প্রাণীর নয়।

ই-কমার্স সাইটের লিংক দেখুন এখানে

এর সূত্রধরে বিস্তারিত সার্চ করার পর, ২০১৮ সালের ৩ অক্টোবর শিল্পী লাইরা মাগানুকোর ফেসবুকে ওই সিলিকন ভাস্কর্যের বেশ কিছু ছবি আপলোড করতে দেখা গেছে। ওই পোস্টে ছবির সাথে থাকা একটি ভিডিওকে ভুল দাবিতে পোস্ট করা হয়েছে আলোচ্য ফেসবুক পেজে।

ইতালির ভাস্কর লাইরা মাগানুকোর ব্যক্তিগত ওয়েবসাইট, ফেসবুক এবং ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইলে এই রকম আরও ভাস্কর্য দেখা গেছে।

সুতরাং ইতালির এক ভাস্করের তৈরি সিলিকন ভাস্কর্যের ছবি ও ভিডিওকে বিরল প্রাণীর দাবি করে ভুয়া প্রচার করা হচ্ছে ফেসবুকে।

Claim Review :   দেখা মিলল মানুষের মতো এক বিরল প্রানীর
Claimed By :  Facebook Posts
Fact Check :  False
Show Full Article
Next Story