তুরস্কে জ্বিন আটকের ভুয়া ভিডিও ভাইরাল

ইস্তাম্বুল শহরে নির্মিত মানবমূর্তিকে 'কাঁচবন্দি জ্বিন' বলে দাবি করে ভুয়া ভিডিও প্রচার করা হয়েছে সামাজিক মাধ্যমে।

সম্প্রতি ফেসবুক এবং ইউটিউবে তুরস্কের ইস্তাম্বুল শহরের একটি উন্মুক্তস্থানে ৮টি জ্বিনকে কাচবন্দি করে রাখা হয়েছে দাবি করে একটি ভিডিও ক্লিপ ভাইরাল হয়। এরকম কয়েকটি লিংক যুক্ত করা হলো এখানে, এখানে এবং এখানে

ফেসবুকে ছড়ানো ভিডিওটির স্ক্রিনশট--


ইউটিউবে একই ভিডিও একই রকম ক্যাপশনে ছড়িয়েছে--


ফ্যাক্ট চেক:

যদিও সাধারণ জ্ঞানের ভিত্তিতেই অনুমান করা যায় এই ধরনের দাবিগুলো ভুয়া হয়ে থাকে। তবু হাজারো মানুষ সেই ভিডিও পোস্ট এবং শেয়ার করার কারণে আমরা ভিডিওটির প্রকৃত তথ্য তুলে ধরছি।

গুগল ইমেজ সার্চের ফলাফল থেকে জানা যাচ্ছে, ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে দেখা যাওয়া মানবমূর্তিগুলো ইস্তাম্বুল শহর কর্তৃপক্ষের নির্মিত স্মরণিকা।

২০১৬ এর ১৫ জুলাই তুরস্কে প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান-বিরোধী যে ক্যু হয় তার স্মরণে এই ৮টি মানবমূর্তি নির্মাণ করা হয়। ২০১৭ সালের ১৫ জুলাই ইস্তাম্বুলের গভর্নর বাসিপ সাহিন, ইস্তাম্বুলের মেট্রোপলিটিন মেয়র মেভলুত উইসাল মূর্তিগুলো উদ্বোধন করেন। এটি 'সারাজেন ১৫ জুলাই মনুমেন্ট' (Saraçhane 15 Temmuz Anıtı) নামে পরিচিত।


তুরস্কভিত্তিক একাধিক সংবাদমাধ্যমের ভাষ্যমতে, মুর্তিগুলো স্থাপনের প্রেক্ষাপট হচ্ছে, ইস্তানবুলে যখন ক্যু চলছিল এবং অজস্র লোকজন রাস্তায় নেমে পড়েছিল, তখন তাদের অনেকে ক্যু-বিরোধী পথযাত্রায় অংশ নেয়ার পথে ওজু করে নিচ্ছিল। পরবর্তীতে স্থানীয় কিছু সিসি ক্যামেরায় সেই ভিডিও দেখে তাদের স্মরণে ইস্তাম্বুল প্রশাসন এই মুর্তিগুলো তৈরি করে।

দেখুন তুরস্কভিত্তিক পত্রিকা ইয়েনি শাফাকের রিপোর্ট। এছাড়াও এই সংক্রান্ত একটি ব্লগেও কিছু বর্ণনা পাওয়া যায়।

ইস্তাম্বুল মেট্রোপলিটন মিউনিসিপ্যালিটির অধীনে এই মূর্তিগুলো তৈরিতে সিলিকন-ফাইবার এবং মানুষের চুল ব্যবহার করায় সেগুলোকে অনেকটা বাস্তব মানুষের মতোই মনে হয়।

Claim :   ইস্তাম্বুল শহরে ৮টি জ্বিনকে 'কাঁচবন্দি' করে রাখা হয়েছে।
Claimed By :  Facebook Posts, YouTube
Fact Check :  False
Show Full Article
Next Story
Our website is made possible by displaying online advertisements to our visitors.
Please consider supporting us by disabling your ad blocker. Please reload after ad blocker is disabled.