ছবিটির সাথে সাম্প্রদায়িক সহিংসতার কোন সম্পর্ক নেই

২০১৫ সালে নারায়ণগঞ্জের বন্দরে মহাঅষ্টমীর পূণ্যস্নানে পদদলিত হয়ে মারা যাওয়া ১০ পুণ্যার্থীর স্বজনদের আর্তনাদের ছবি এটি।

সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকের একাধিক পেজ ও আইডি থেকে আর্তনাদ করছেন এমন এক নারীর ছবি শেয়ার করে দাবি করা হচ্ছে যে, সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক সহিংসতার ঘটনার ছবি এটি। এমন কিছু পোস্ট দেখুন এখানে, এখানে, এখানে এবং এখানে

গত ২৩ অক্টোবর 'Guruprosed Hoom Chowdhury' নামের একটি আইডি থেকে পোস্ট করা গ্রাফিক পোস্টারটিতে লেখা হয়েছে, "#HindusNotSafeInBangladesh. No one is Punished for Communal attacks on Hindus. Stop Atacks on Hindus in Bangladesh. #PleaseSaveBangladeshiHindu. The media is silent on the ongoing Hindu persecution for decades.।" স্ক্রিনশট দেখুন-

পোস্টটি দেখুন এখানে

ফ্যাক্ট চেক

বুম বাংলাদেশ যাচাই করে দেখেছে, ছবিটি সাম্প্রতিক কোন ঘটনার নয় এবং সাম্প্রদায়িক সহিংসতার সাথে এর কোন সম্পৃক্ততাও নেই। মূলত ২০১৫ সালে নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার লাঙ্গলবন্দ এলাকায় পূজা উৎসবে মহাঅষ্টমীর পুণ্যস্নানের সময় মানুষের উপচে পড়া ভিড়ে পদদলিত হয়ে মারা যাওয়া তীর্থযাত্রীদের স্বজনদের আর্তনাদের ছবিকে বিভ্রান্তিকর দাবিতে সাম্প্রতিক বলে প্রচার করা হচ্ছে। মূলধারার গণমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, নারায়ণগঞ্জের মর্মান্তিক ওই ঘটনায় সাত নারীসহ অন্তত ১০ জন পুণ্যার্থী মারা যান।

রিভার্স সার্চ করলে, আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম দ্য নিউইয়ার্ক টাইমস-এ ২০১৫ সালের ২৭ মার্চ "Stampede at Hindu Bathing Ritual in Bangladesh Kills at Least 10" শিরোনামের খবরের সাথে যুক্ত ভিডিওর থাম্বনিলে ছবিটি দেখতে পাওয়া যায়। খবরে বলা হয়, বাংলাদেশের নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলায় হিন্দু সম্প্রদায়ের পুণ্যস্থান লাঙ্গলবন্দে মহাঅষ্টমীর পুণ্যস্নানের সময় পদদলিত হয়ে অন্তত ১০ জন মারা যান। স্ক্রিনশট দেখুন--

খবরটি দেখুন এখানে

এরসূত্র ধরে সার্চ করার পর, "Stampede at Hindu festival kills 10 devotees" শিরোনামে পাকিস্তানের প্রাভাবশালী গণমাধ্যম দ্য ডন পত্রিকায় একই বছরের এপ্রিল মাসে প্রকাশিত ফটোস্টোরিতেও আলোচ্য ছবিটির অন্য একটি মুহুর্ত খুঁজে পাওয়া যায়, যা বার্তা সংস্থা এএফপির ধারণ করা বলে উল্লেখ করা হয়েছে। বার্তা সংস্থার বরাতে দ্য ডনের প্রকাশিত খবরটির বিষয়বস্তুও নিউইয়র্ক টাইমস-এর খবরের অনুরূপ।

খবরটি পড়ুন এখানে

বিস্তারিত ঘটনা সম্পর্কে অনুসন্ধান করে, মূলধারার গনমাধ্যম প্রথম আলোয় ২০১৫ সালের ২৭ মার্চ "নারায়ণগঞ্জে পুণ্যস্নানে পদদলিত হয়ে নিহত ১০" ঘটনাটি সম্পর্কে প্রকাশিত প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায়। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, "নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলায় সনাতন সম্প্রদায়ের পুণ্যস্থান লাঙ্গলবন্দে মহাঅষ্টমীর পুণ্যস্নানের সময় পদদলিত হয়ে সাত নারীসহ ১০ জন পুণ্যার্থী মারা গেছেন। আজ শুক্রবার সকাল সাড়ে নয়টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় প্রায় ২০ জন আহত হয়েছেন বলে পুলিশ জানিয়েছে।" খবরের স্ক্রিনশট দেখুন -

খবরটি পড়ুন এখানে

অর্থাৎ ছবিটি সাম্প্রতিক নয় বরং ৬ বছর আগের নারায়ণগঞ্জের একটি দুর্ঘটনার।

সুতরাং ৬ বছর পুরোনো নারায়ণগঞ্জের ভিন্ন একটি ঘটনায় নিহতদের স্বজনদের আর্তনাদের ছবিকে সাম্প্রতিক সাম্প্রদায়িক সহিংসতার সাথে মিলিয়ে ভুলভাবে প্রচার করা হচ্ছে, যা বিভ্রান্তিকর।

Claim Review :   আয়রে সবাই দলে দলে একই ছায়াতলে, রুখবো মিলে বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িকতা।
Claimed By :  Facebook
Fact Check :  Misleading
Show Full Article
Next Story